electric-scooter-maintenance-guide

Electric Scooter maintenance guideline

ইলেকট্রিক স্কুটার বর্তমান সময়ে চলাচলের বাহন হিসাবে এক চমৎকার মাত্রা যোগ করেছে। পৃথিবীতে অনেক দেশের লোকজন অফিস আদালত যাওয়া থেকে শুরু করে অন্যান্য জায়গায় যাওয়ার জন্য ইলেকট্রিক স্কুটার ব্যবহার করছে। ইলেকট্রিক স্কুটার গুলো খুব সহজে ব্যবহার করা যায় এবং এগুলো দামেও সস্তা। এগুলোর ব্যবহার অনেক সহজ কিন্তু এগুলোর ও বেশ যত্নের প্রয়োজন হয়। অন্যান্য মেশিন এবং গাড়ি, বাইসাইকেল, মোটরবাইক এগুলোর মত ইলেকট্রিক স্কুটারের ও বিশেষ যত্ন এবং মেইনটেনেন্স এর দরকার হয়। যদি আপনি আপনার ইলেকট্রিক স্কুটার অনেকদিন ব্যবহার করতে চান তাহলে আপনাকে অবশ্যই এর যত্ন এবং কিভাবে মেইনটেনেন্স করতে হয় তা আপনাকে জানতে হবে। আজকের আর্টিকেলে আপনি ইলেকট্রিক স্কুটার এর যত্ন এবং মেইনটেনেন্স সম্পর্কে আগাগোড়া ধারণা পেয়ে যাবেন। চলুন কথা না বাড়িয়ে দেখে নেই ইলেকট্রিক স্কুটারের যত্ন এবং মেইনটেনেন্স।

ইলেকট্রিক স্কুটার এর ব্যাটারির যত্ন এবং মেইনটেনেন্সঃ

ইলেকট্রিক স্কুটার এর যত্ন নিতে সবার প্রথমে যে বিষয়টি আসে তা হল ব্যাটারি রক্ষণাবেক্ষণ। বেশিরভাগ ইলেকট্রিক স্কুটারের ব্যাটারি হল লিথিয়াম ব্যাটারি যেগুলোর পারফরম্যান্স অত্যন্ত চমৎকার। আগের চেয়ে বর্তমান সময়ে ইলেকট্রিক স্কুটারে যে ধরনের ব্যাটারি ব্যবহার করা হয় এগুলো বেশ পাওয়ারফুল এবং এগুলোর স্থায়িত্ব অনেক বেশি দিন হয়। তাই যত্নের ক্ষেত্রে প্রথম যে পদক্ষেপটা আসবে তা হল স্কুটারের ব্যাটারির সঠিক রক্ষণাবেক্ষণ। আপনার ইলেকট্রিক স্কুটারের গতি যদি কমে আসে তাহলে আপনাকে বুঝতে হবে যে এর ব্যাটারির ক্ষমতা কমে গেছে। যাই হোক ইলেকট্রিক স্কুটারের ব্যাটারির স্থায়িত্ব বাড়ানোর জন্য কিছু বিষয় লক্ষণীয়।

  • কখনোই ব্যাটারির চার্জ একেবারে খালি করা যাবে না। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন যে যদি ব্যাটারির স্থায়িত্ব রাখতে চান তাহলে কমপক্ষে ৯০% চার্জ ব্যাটারিতে থাকতে হবে।
  • সব সময় ইলেকট্রিক স্কুটারের ব্যাটারির চার্জার ব্যবহার করতে হবে। চার্জারে যেন লাইট সিগন্যাল থাকে যাতে চার্জ হয়ে গেলে আপনি বুঝতে পারেন।
  • চার্জ শেষ হওয়ার পর ব্যাটারিতে চার্জার লাগিয়ে রাখবেন না এতে ব্যাটারির স্থায়িত্ব নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে।
  • ব্যাটারি থেকে কোন রাসায়নিক পদার্থ লিক হচ্ছে কি না তা লক্ষ্য রাখতে হবে। ব্যাটারির সংযোগ জায়গায় ক্ষয় হলে সেগুলো বন্ধ করুন।
  • ব্যাটারি ঠান্ডা হলে চার্জ দিন। এতে ব্যাটারি বেশি দিন স্থায়ী হবে।

ইলেকট্রিক স্কুটার কে নিয়মিত পরিষ্কার করুনঃ

আপনি যদি প্রতিদিন আপনার ইলেকট্রিক স্কুটার ব্যবহার করেন তাহলে এতে অবশ্যই ধুলাবালি ,কাদা লাগবে তাই স্কুটার কে নিয়মিত পরিষ্কার করতে হবে। এক্ষেত্রে হালকা সাবান ব্যবহার করতে পারেন। যেগুলো মেটালিক অংশ এবং পেইন্ট করা থাকে সে অংশে খুব জোরে ঘষা যাবে না, এতে স্কুটার এর বাহ্যিক সৌন্দর্য নষ্ট হয়ে যায়। পরিষ্কার করার সময় দেখতে হবে কাদা ধুলাবালি ভালোভাবে পরিস্কার হলো কিনা কারণ এগুলো জমে গেলে স্কুটারের গতি কমে যায়। পানি ব্যবহার করার ক্ষেত্রে সতর্ক হোন যাতে ব্যাটারি কোনভাবে ক্ষতিগ্রস্ত না হয়।

ইলেকট্রিক স্কুটার এর টায়ার চেক করাঃ

একটা ইলেকট্রিক স্কুটারের সাধারণত দুটো টায়ার থাকে। একটা সামনে আরেকটা পিছনে। এই দুই টায়ার ওজন বহনের ক্ষেত্রে দুই ধরনের কাজ করে থাকে। সামনের টায়ার থেকে পেছনের টায়ার বেশি ওজন ধারণ করে থাকে। টায়ার ভাল রাখতে হলে নিয়মিত স্কুটারের টায়ারকে পাম্প করতে হবে, যে ধরনের টায়ারে যেমন প্রেসার দরকার সেই টায়ার কে সব সময় সেই প্রেসার রাখতে হবে তা না হলে লিক হয়ে যেতে পারে। নিচে একটা লিস্ট দেয়া হল

মডেল টায়ার প্রেসার

  • Inokim Quick(10 inch tire) 45
  • Inokim Light(8.5 inch tire) 35
  • IMAX S1+(10 inch tire) 45

ইলেকট্রিক স্কুটারের ব্রেকস এর নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণঃ

ইলেকট্রিক স্কুটার ব্যবহার করতে হলে অবশ্যই এর ব্রেকসগুলোর নিয়মিত সার্ভিসিং দরকার হয়। নিয়মিত চেক না করলে হঠাৎকরে দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা থাকে। এগুলো অ্যাক্টিভ রাখার জন্য আপনাকে অবশ্যই চেক করতে হবে। ব্রেকসগুলো যদি ঢিলা থাকে তাহলে সেগুলোকে টাইট করতে হবে পরিমিত মাত্রায়। যদি ব্রেক গুলো হাইড্রোলিক ব্রেক হয় তাহলে লক্ষ্য রাখতে হবে সেগুলোতে যেন প্রচুর ফ্লুইড থাকে। বেশিরভাগ ইলেকট্রিক স্কুটারের ব্রেক গুলো মেকানিক্যাল ব্রেক হয়। তাই এই এগুলোর নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ দরকার হয়।এগুলো নিয়মিত লুব্রিকেসনের দরকার পড়ে। সবচেয়ে ভালো হয় আপনি যেখান থেকে ইলেকট্রিক স্কুটার কিনেছেন বা কিনবেন সেখান থেকে এগুলো রক্ষণাবেক্ষণের টিপসগুলো নিতে পারেন এতে আপনার যত্ন নিতে সুবিধা হবে।

ইলেকট্রিক স্কুটারের বিয়ারিং এর যত্নঃ

চাকার যত্নের পাশাপাশি ইলেকট্রিক স্কুটারের বিয়ারিংস গুলোর যত্ন এবং মেইনটেনেন্স করা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। কাদা এবং ধুলাবালি পরিষ্কার করার পাশাপাশি এগুলোকে নিয়মিত গ্রিজ করতে হয় যাতে সেগুলো সচল থাকে। ইলেকট্রিক স্কুটারের বিয়ারিংস গুলোকে পরিষ্কার কাপড় দিয়ে মুছে নিতে হয়।

ইলেকট্রিক স্কুটার এর চেইন অথবা বেল্টের যত্নঃ

আপনার ইলেকট্রিক স্কুটারটিকে সচল রাখার জন্য এর চেইন অথবা বেল্ট এর যত্ন নিতে হবে এবং এগুলোর দিকে পুরো খেয়াল রাখতে হবে। চেইন যদি ঢিলা হয়ে যায় সেক্ষেত্রে স্কুটার স্লিপ করার সম্ভাবনা থাকে। বেল্ট এর ক্ষেত্রে যদি বেল্ট ঢিলা হয় তাহলে স্কুটার অনেক হিট হয়ে যায় এবং বেল্ট ভেঙে যায়। বেল্ট এবং চেইন রিপ্লেস করতে চাইলে যেখান থেকে কিনেছেন সেখানকার ম্যানুয়াল ফলো করা অনেক বেশি ভালো হবে।

ইলেকট্রিক স্কুটারে লুব্রিকেশন দেয়াঃ

বাইসাইকেল বা মোটরবাইক বা অন্যান্য যানবাহনের মত ইলেকট্রিক স্কুটারে ও তেল দেয়া প্রয়োজন হয়। মুভিং পার্টসগুলোকে সচল রাখতে লুব্রিকেশন অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটা কাজ। ইলেকট্রিক স্কুটারের চেইন, থ্রটল এবং ব্রেকস গুলোকে ও লুব্রিকেট রাখা প্রয়োজন। এতে স্কুটারের গতি ভালো থাকে তবে অবশ্যই ভালো লুব্রিকেশন ব্যবহার করতে হবে। এক্ষেত্রে কেনার সময় আপনাকে যে ধরনের তেল কিনতে বলে সে ধরনের তেল ব্যবহার করা আপনার স্কুটার এর জন্য ভালো হবে।

পরিশেষে ইলেকট্রিক স্কুটারগুলো সরল এবং মসৃণ রাস্তায় চলার জন্য তৈরি করা হয়েছে। যে ইলেকট্রিক স্কুটার যে ক্যাপাসিটি ধরে রাখতে সক্ষম তার বাহিরে কাজ করা বা প্রেসার দিলে ইলেকট্রিক স্কুটারের গতি এবং নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে। উঁচু-নিচু রাস্তায় স্কুটার চালালে স্কুটার তাড়াতাড়ি নষ্ট হয়ে যায়। তবে ইলেকট্রিক স্কুটারের যত্ন এবং মেইনটেনেন্স এত কঠিন ব্যাপার নয় আবার এতে খরচ ও বেশি হয় না। আপনি যদি উপরে বর্ণিত টিপসগুলো খেয়াল রাখতে পারেন তাহলে অবশ্যই আপনার ইলেকট্রিক স্কুটার অনেকদিন পর্যন্ত ভালো থাকবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *